মাদকাসক্তি - ভুল ধারনা এবং বাস্তব

ভুল ধারনা: মদের প্রতি অনুরাগ বা মদ্যপান বিষয়টি আসলে মানুষের পছন্দের উপর নির্ভরশীল।

বাস্তব: মদে আসক্ত হওয়া মোটেই পছন্দ-নির্ভর বিষয় নয়। যখন কেউ মদ্যপান নিজের পছন্দের বিষয় বলে মনে করে, তখন তাদের মধ্যে মদের প্রতি অত্যধিক নির্ভরশীলতা বা আসক্ত হওয়ার প্রবণতা দেখা যায়। এর পিছনে রয়েছে বহু কারণ। একজন ব্যক্তি যখন মাদকাসক্ত হয় তখন তার পিছনে পরিবেশের প্রভাব এবং ব্যক্তির জেনেটিক উপাদানগুলির ভূমিকা অপরিসীম। এক্ষেত্রে পছন্দের প্রশ্নটি নিতান্তই নগণ্য।

 

ভুল ধারনা: আমি বেশি করে মদ খেতে চাই বলে মদ্যপান করি। কিন্তু তা বলে বেসামাল হয়ে যাই না।

বাস্তব: মানুষের শরীরে মদ্যপানের কুপ্রভাব তার মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতার উপর নির্ভরশীল। প্রতিটি মানুষের একটি নিজস্ব গ্রহণক্ষমতা থাকে। এই ক্ষমতাটি মানুষের দৈহিক উচ্চতা, ওজন, লিঙ্গভেদ এবং জেনেটিক গঠনের দ্বারা নির্ধারিত হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে লক্ষ করার মতো বিষয় হল, আগে যে পরিমাণ মদ খেয়ে আপনি বেসামাল হয়ে পড়ছিলেন, এখন নিয়ন্ত্রণ হারানোর জন্য তার থেকেও বেশি পরিমাণ মদ দরকার হচ্ছে, তাহলে বুঝতে হবে আপনি পুরোপুরি মদে আসক্ত হয়ে পড়ছেন। মদ্যপানের সহ্যসীমা বেড়ে যাওয়াটা মাদকাসক্তির ইঙ্গিত। এই পরিস্থিতি থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য দরকার পারিপার্শ্বিক সহায়তা।

 

ভুল ধারনা: কতটা পান করছেন সেটা কোনও বিষয় নয়, একটা কফি পান করলেও তাৎক্ষণিক স্বাচ্ছন্দ্যবোধ হয়।

বাস্তব: গড়পরতা মানুষের ক্ষেত্রে এক ঘণ্টায় একমাত্রার পানীয়ই সেবন করা স্বাভাবিক। যখন এক ঘণ্টায় একমাত্রা গ্রহণ করছে, তখন মানুষের লিভার স্বাভাবিক পদ্ধতিতে নির্দিষ্ট পরিমাণ টক্সিনকে বার করে দিতে সক্ষম হয়। যখন একসঙ্গে বেশি পরিমাণ মদ শরীরে যায় তখন লিভার সেই বাড়তি টক্সিনের বোঝা নিতে পারে না। বাড়তি অ্যালকোহল শরীরের মধ্যেই জমা হতে থাকে। কফির মতো পানীয় শরীরকে স্বাচ্ছন্দ্য দিলেও, অ্যালকোহল শরীরের মধ্যেই জমে থাকে এবং সময় মতো কুপ্রভাব বিস্তার করে।

 

ভুল ধারনা: আমি চাইলে যে কোনও সময়েই মদ খাওয়া ছেড়ে দিতে পারি। আমার পছন্দ বা অপছন্দের প্রশ্নই এখানে বড়।

বাস্তব: আপনি যদি অনেক দিন ধরে মদ খান এবং মদের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েন, তাহলে আপনি নিজেকে মাদকাসক্তির হাত থেকে মুক্ত করতে পারবেন না। এই পরিস্থিতে 'আমি মদ ছোঁব না'- এই কথাটা জোর দিয়ে বলা খুবই কঠিন। তবে সঠিক সাহায্য পেলে এই সমস্যার সমাধান করা যায়।

 

ভুল ধারনা: উপযুক্ত চিকিৎসার পর আমি এখন জেনে গিয়েছি যে, কীভাবে অ্যালকোহলের কুপ্রভাব থেকে নিজেকে বাঁচানো যায়। আমি নিশ্চিত মদ আমাকে কখনোই খেতে পারবে না।

বাস্তব: মদে আসক্ত হওয়ার বিষয়টি সারা জীবনের সঙ্গী হয়ে যেতে পারে। চিকিৎসা করালে আপনি অসহনীয় অবস্থার হাত থেকে রেহাই পেলেও, এই পরিস্থিতি যে আপনার জীবনে আবার ফিরে আসবে না, তা জোর দিয়ে বলা যায় না। আপনি কতদিন মদ না খেয়ে থাকলেন সেটি বড় প্রশ্ন নয়। একবার মাদকাসক্তির হাত থেকে বেরতে পারা মানে সারা জীবনের জন্য নিশ্চিন্ত হয়ে যাওয়ার কোনও কারণ নেই। একবার অসুখ সারার পর যদি আবার ভবিষ্যতে তা ফিরে আসার সম্ভাবনা দেখা যায়, তাহলে ডাক্তার বা থেরাপিস্টের সাহায্য ছাড়া আর গতি নেই।

 


আরও পড়ুন