অ্যালঝাইমার্‌স ডিসিস্‌ বলতে কী বোঝায়?

মস্তিষ্ক অ্যালঝাইমার্‌স ডিসিস্‌-এ আক্রান্ত হলে কী হয়?

অ্যালঝাইমার্‌স-এর উৎস সঠিক না জানলেও এটা দেখা গেছে যে, উপসর্গগুলি স্পষ্ট হয়ে ওঠার প্রায় এক দশক আগে থেকেই এই রোগ নিঃশব্দে আপনার ওপর থাবা বসায়। কারণ রোগের গোড়ার দিকে কোনও উপসর্গ দেখা না গেলেও মস্তিষ্কের কোষগুলিতে বিভিন্ন বিষাক্ত পরিবর্তন বা টক্সিড চেঞ্জ দেখা যায়। ধীরে ধীরে মস্তিষ্কের স্নায়ুকোষ বা নিউরন কোষগুলি সংকেত প্রেরণের ক্ষমতা হারিয়ে ফেলে এবং একসময় সম্পূর্ন রূপে বিকল হয়ে পড়ে।

এরপরে মস্তিষ্কের হিপোক্যাম্পাস অংশটি ক্ষতগ্রস্ত হয়। এই হিপোক্যাম্পাসে আমাদের যাবতীয় স্মৃতি তৈরি হয় এবং এই স্নায়ুকোষগুলি যত ধ্বংস হয়, আমাদের মস্তিষ্ক তত কুঁকড়ে ছোট হয়ে যেতে থাকে। রোগের শেষ পর্যায়ে আক্রান্ত ব্যক্তি সম্পূর্ণ রূপে নিজের স্মৃতি হারিয়ে ফেলে অন্যের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ে। 

একজন অ্যালঝাইমার্‌স রোগী কতদিন বাঁচতে পারেন?

অ্যালঝাইমার্‌স সাধারণত তিনটি ধাপে এগোয়। প্রথম ধাপে কোনও উপসর্গ থাকে না। তারপর চারপাশের প্রভাব বুঝতে বা মনে রাখতে অসুবিধা হয় এবং একদম শেষ পর্যায়ে আক্রান্ত ব্যক্তি সব কিছু ভুলে যায়। রোগনির্ণয় থেকে মৃত্যুর সময় ব্যক্তিবিশেষে নির্ভর করে। যদি বেশি বয়সে ধরা পড়ে তবে রোগী ৩-৪ বছরের বেশি বাঁচেন না। আবার অল্প বয়সেই যদি ধরা পড়ে তবে প্রায় ১০ বছর বাঁচার সম্ভাবনা থাকে।

ডিমেনশিয়া কী?

ডিমেনশিয়া আমাদের মস্তিষ্কের এমন একটি অবস্থা, যেখানে কোনও কিছু বোঝার ক্ষমতা, স্মৃতিশক্তি, চিন্তাশক্তি, যুক্তিবোধ ও ব্যক্তিত্ব নষ্ট হয়ে যাওয়ার ফলে আমরা রোজকার কাজকর্ম করার ক্ষমতাও হারিয়ে ফেলি। শুরুর দিকে ডিমেনশিয়ার উপসর্গ সেরকম বোঝা না গেলেও  ধীরে ধীরে তা গুরুতর আকার ধারণ করে।

ডিমেনশিয়া অনেক কারণে হতে পারে। সাধারণত অ্যালঝাইমার্‌স রোগীদের ক্ষেত্রে ডিমেনশিয়া বেশি দেখা যায়। মস্তিষ্কে রক্ত চলাচল ব্যহত হলে বা একের পর এক স্ট্রোকের কারণে সংবহনতান্ত্রিক ডিমেনশিয়া হতে পারে।  

অন্যান্য যেসব কারণে ডিমেনশিয়া হয়ঃ

  • বিভিন্ন ওষুধপত্রের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া।
  • অতিরিক্ত মদ্যপান।
  • টিউমার বা মস্তিষ্কে সংক্রমণ।
  • মানসিক কোনও আঘাতে স্নায়ুকোষ নষ্ট হয়ে গেলে।
  • মস্তিষ্কে কোনও কারণে রক্ত জমাট বেঁধে গেলে।
  • ভিটামিন বি-১২ এর অভাবে।
  • কিডনি বা লিভার বিকল হলে অথবা থাইরয়েডের সমস্যা থাকলে।

ডিমেনশিয়ার চিহ্নিতকরণের ভ্রান্তি

অতিরিক্ত স্ট্রেস বা ডিপ্রেশনে মানুষ অনেক কিছুই ভুলে যেতে পারেন, কিন্ত সেটাকে ডিমেনশিয়ার সঙ্গে গুলিয়ে ফেলা উচিত নয়। সদ্য অবসরপ্রাপ্ত বা বিপত্নীক একজন ব্যক্তি শোকে-দুঃখে অনেক কিছুই ভুলে যেতে পারেন। জীবনের এইরকম কঠিন পরিস্থিতিতে তাঁর পরিবারের উচিত তাঁর পাশে দাঁড়ানো।

আমি প্রায়ই লোকের নাম ভুলে যাই। আমি কি অ্যালঝাইমার্‌স-এ আক্রান্ত?

আমরা অনেকেই অনেক সময় অনেক কিছুই ভুলে যাই! কিন্তু তাতে যদি আমাদের দৈনন্দিন জীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে তখনই তা নিয়ে মাথা ঘামানো উচিত।

অ্যালঝাইমার্‌স কি শুধু বৃদ্ধ বয়সেই হয়?

যদিও ৫০% ক্ষেত্রেই ৭৫ বছর বয়সের পরে অ্যালঝাইমার্‌স-এর শিকার হবার সম্ভাবনা থাকে, কিন্তু বহু ক্ষেত্রেই ৪০-৫০-র মধ্যে যাঁদের বয়স, তাঁরাও এই রোগের কবলে পড়তে পারেন।