মাতৃত্ব

গর্ভাবস্থা: আমি নিজের স্বাস্থ্য এবং সন্তানের বিষয়ে খুবই চিন্তিত, তাহলে কি আমি মানসিক উদ্বেগে ভুগছি?

হোয়াইট সোয়ান ফাউন্ডেশন

গর্ভধারণের সময়ে মহিলাদের মধ্যে নানা বিষয় নিয়ে চিন্তাভাবনা করতে প্রায়শই দেখা যায়। কী খাবে আর কী খাবে না (খাদ্য, পানীয়) তা নিয়ে সন্তানসম্ভবা মহিলারা খুবই চিন্তান্বিত হয়ে পড়ে। অথবা এইসময়ে কী করা উচিত বা কী করা উচিত নয় প্রভৃতি নানা বিষয় নিয়ে মহিলাদের মধ্যে চিন্তাভাবনা করার প্রবণতা খুবই স্বাভাবিক একটা ঘটনা হয়ে দাঁড়ায়। গর্ভাবস্থা এমন একটা সময় যখন একজন মহিলার মধ্যে উত্তেজনা ও ভয় একইসঙ্গে জেগে ওঠে। তবে যখন এসব চিন্তাভাবনা অত্যন্ত গভীর এবং তার প্রভাব একজন মানুষের দৈনন্দিন জীবনে পড়ে তখন তা মানসিক উদ্বেগজনিত সমস্যার লক্ষণ হিসেবে বিবেচিত হয়।

গর্ভধারণের সময় মানসিক উদ্বেজনিত সমস্যার কয়েকটি লক্ষণ হল-

  • একনাগাড়ে চিন্তাভাবনা করা এবং সেই চিন্তা কিছুতেই মন থেকে সরানো যায় না
  • প্রতিনিয়ত অস্থিরতা বোধ করা, অধীর হয়ে থাকা এবং খিটখিটে হয়ে যাওয়া
  • মানসিক আতঙ্কে ভোগা এবং ভয় পেয়ে একেবারে দিশাহারা হয়ে পড়া
  • পেশিতে চাপ অনুভব করা এবং নিজেকে শান্ত রাখতে না পারা
  • রাতে ঘুমের সমস্যা দেখা দেওয়া

যদি কোনও গর্ভবতী মহিলা দেখে যে অত্যন্ত স্বাভাবিক বিষয় নিয়ে সে খুব চিন্তায় পড়ে যাচ্ছে এবং উপরের লক্ষণগুলো তার মধ্যে প্রকাশ পাচ্ছে তাহলে অবিলম্বে একজন বিশেষজ্ঞের সাহায্য নেওয়া জরুরি। সেক্ষেত্রে নিজের সঙ্গী বা স্বামী অথবা পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথাবার্তা বলে একজন মানসিক স্বাস্থ্যের বিশেষজ্ঞের সঙ্গেও যোগাযোগ করা প্রয়োজন।

গর্ভধারণের সময় একজন মহিলার ক্ষেত্রে মানসিক ও শারীরিক- দু'রকমের সমস্যাই দেখা দেওয়া সম্ভব। অনেকের ক্ষেত্রে আবার উদ্বেগ ও অবসাদের মতো সমস্যা দেখা দেওয়ার ঝুঁকি থাকে। অধিকাংশ মহিলারা নিজেরাই এই সমস্যাগুলোর মোকাবিলা করতে সক্ষম হয় এবং তার জন্য অন্য কারোর হস্তক্ষেপের প্রয়োজন পড়ে না। তবে কারও কারও ক্ষেত্রে সমস্যা বেশ গুরুতর হয়ে দেখা দেয়। গর্ভাবস্থায় মহিলাদের মধ্যে উদ্বেগের সমস্যা বেড়ে যাওয়ার পিছনে কতগুলো বিপজ্জনক প্রবণতা আগে থেকেই থাকে, সেগুলো হল-

  • অতীতে উদ্বেগজনিত সমস্যায় ভোগা
  • উদ্বেগের সমস্যার পারিবারিক ইতিহাস
  • আগের গর্ভধারণের সময় নেতিবাচক অভিজ্ঞতা অর্জন করা
  • বাড়িতে বা কাজের জায়গায় অতিরিক্ত চাপ বহন করা

স্বাভাবিক অবস্থার বৈশিষ্ট্য

বাচ্চার স্বাস্থ্য, নিজে ভালো অভিভাবক হতে পারবে কিনা এবং বাচ্চার লালন-পালনের ক্ষেত্রে অর্থনৈতিক স্বাচ্ছন্দ- প্রভৃতি নিয়ে চিন্তাভাবনা করা

রাতে কিছুদিন ঘুমের সমস্যার জন্য সামান্য ব্যথা-বেদনা বোধ করা

উদ্বেগজনিত সমস্যার সম্ভাব্য বৈশিষ্ট্য

যখন চিন্তাভাবনা মানুষের দৈনন্দিন জীবনে, তার কাজের জায়গায় বা বাড়িতে কুপ্রভাব ফেলে, যখন মানুষ তার পছন্দের বিষয়গুলো আর উপভোগ করতে না পারে বা মাঝে মাঝে ভয় ও আতঙ্কের শিকার হয়

পেশির চাপ ও ক্লান্তির জন্য প্রায়শই বুক ধড়ফড় করা

চিকিৎসা

যেসব সন্তানসম্ভবা মহিলা হালকা থেকে মাঝারি ধরনের মানসিক উদ্বেগের শিকার হয় তাদের ক্ষেত্রে মানসিক সাহায্য এবং কিছু সাইকোথেরাপি যেমন- কগনিটিভ বিহেভায়রল থেরাপি (সিবিটি) বা ইন্টারপার্সোনাল থেরাপির (আইপিটি) সহায়তাই যথেষ্ঠ। এসব থেরাপির সাহায্যে মানুষের মনের এহেন আতঙ্কগ্রস্ত চিন্তার কারণ অনুসন্ধান করা যায় এবং তাদের চিন্তাভাবনার বদল ঘটানোও সম্ভব হয়। তবে গুরুতর লক্ষণের ক্ষেত্রে ওষুধ প্রয়োগ একান্ত জরুরি হয়ে পড়ে। মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা রুগির অবস্থা অনুযায়ী ওষুধের ব্যবহার করেন যা অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সুফল দেয় এবং তার ঝুঁকিও কম থাকে। কারণ ওষুধের মাত্রা অত্যন্ত কম হয় এবং একমাত্র  প্রয়োজন পড়লেই তা প্রয়োগ করা হয়।       

হোয়াইট সোয়ান ফাউন্ডেশন
bengali.whiteswanfoundation.org